Hesperian Health Guides

পরিবার পরিকল্পনার প্রাকৃতিক পদ্ধতি

বুকের দুধ পান করানো

একজন নারী একটি শিশুকে বুকের দুধ পান করাচ্ছে আর একজন পুরুষ নারীটির কাঁধে হাত রেখে দাঁড়িয়ে আছে।

একজন নারী যখন বুকের দুধ খাওয়ায় তখন তার দেহ কিছু হরমোন তৈরী করে যা কয়েক মাস পর্যন্ত গর্ভধারণ রোধ করে। গর্ভধারণ রোধে বুকের দুধ পান করানো সবথেকে নির্ভরযোগ্য যখন:

  • বাচ্চার বয়স ৬ মাসের কম।

এবং

  • আপনি আপনার শিশুকে শুধুই বুকের দুধ পান করান, অন্য কোন খাবার বা পানীয় নয়, এবং আপনি আপনার শিশুকে দিনে ও রাতে ঘন ঘন খাওয়ান।

এবং

  • জন্মদানের পর আপনার মাসিক রক্তক্ষরণ না হয় থাকে।


আপনি আপনার শিশুকে খাবার দেয়া শুরু করলে বা আপনার মাসিক শুরু হলে বুকের দুধ পান করানো আর গর্ভধারণ রোধ করতে পারবে না।

গর্ভধারণক্ষমতার সচেতনতা

একজন নারী শুধুমাত্র তার গর্ভধারণক্ষম সময়েই গর্ভবতী হতে পারে যখন তার গর্ভাশয় থেকে ডিম্বাণু তার নালী ও গর্ভাশয়ের মধ্যে এসে বসে। এই সময়টা কয়েক বেশ কয়েক দিন স্থায়ী হয় এবং প্রায় প্রতি মাসে একবার হয়। এই গর্ভধারণক্ষম সময়ে যৌনসঙ্গম এড়ানোর মাধ্যমে সে গর্ভধারণ রোধ করতে পারে। (অথবা, যদি এক দম্পতি গর্ভধারণ করতে চায় তবে তারা এই সময়ে যৌনসঙ্গম করে গর্ভধারণ করার সম্ভাবনা অনেক বাড়িয়ে তুলতে পারে।)

এই পদ্ধতিটি কার্যকর হবার জন্য একজন নারীর নিয়মিত মাসিক হতে হবে, এবং মাসিক চক্রের প্রতিটি ধাপের অবস্থাগুলো ভালভাবে খেয়াল করতে হবে। পুরুষটিকেও এই পদ্ধতি কার্যকর করার জন্য সাহায্য করতে আগ্রহী হতে হবে, কারণ গর্ভধারণক্ষম সময়ে তাদেরকে অবশ্যই যৌনসঙ্গম (পুরুষাঙ্গ স্ত্রীযোনিতে প্রবেশ করানোর মাধ্যমে যৌনক্রিয়া) এড়িয়ে চলতে হবে। তারা অন্যান্য ধরনের যৌনক্রিয়া করতে পারে, যেমন মুখমৈথুন বা যৌনাবেদনময় স্পর্শ। বা তারা গর্ভধারণক্ষম সময়ে কনডম ব্যবহার করতে পারে।

সন্তান সংখ্যা সীমিত রাখতে চায় এমন একজন নারীর জন্য এটি একটি খুবই ভাল পদ্ধতি হতে পারে। কিন্তু অনেক সময় মাসিক চক্র পূর্বাভাষ ছাড়াই পরিবর্তীত হতে পারে। মানুষ সব সময় ভালভাবে তাদের গর্ভধারণক্ষম সময়ের ধাপগুলো ভাল লিপিবদ্ধ করে না, ফলে এই পদ্ধতি ব্যবহার করে গর্ভবতী হবার ঘটনা প্রায়ই ঘটছে। গর্ভধারণক্ষমতার সচেতনতা এইচআইভিসহ কোন এসটিআই-এর বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেয় না, যা নারীটির মাসিক চক্রের যে কোন সময়ে পরিবাহিত হতে পারে।

কিভাবে গর্ভধারণক্ষমতার সচেতনতা ব্যবহার করতে হবে

একজন নারী তার আঙ্গুল গণনা করছে ও চিন্তা করছে।
আমার মাসিক শুরু হয়েছে ৮দিন আগে, সুতরাং আমরা আজকে, বা পরবর্তী ১০ দিন যৌনসঙ্গম করতে পারবো না। আমি তাহলে আমার বোনের বাড়িতে গিয়ে থাকি।

কয়েক মাসের জন্য আপনার মাসিক চক্রের দিনগুলো গণনা করুন। আপনার মাসিকের প্রথম দিনটি থেকে গণনা শুরু করুন। আপনার মাসিক চক্রের শেষ দিনটি হচ্ছে আপনার পরবর্তী বার রক্তক্ষরণ হবার আগে শেষ রক্তক্ষরণের দিন। আপনার যদি প্রতিটি চক্রে একই সংখ্যক দিন থেকে থাকে, এবং মাসিক চক্রটি ২৬ থেকে ৩২ দিন স্থায়ী হয় তবে এই চক্রটি কাজ করতে পারে।

আপনার চক্রটি কয়েক মাসের জন্য একবার গণনা করা হয়ে গেলে এবং আপনার চক্রটি যে নিয়মিত তা আপনি নিশ্চিত হয়ে গেলে আপনি এই পদ্ধতিটি ‍শুরু করতে পারেন। আপনার প্রতিটি চক্রের ৮ম দিন থেকে ১৯তম দিন পর্যন্ত যৌনসঙ্গম এড়িয়ে চলুন। বা সেই সময়গুলোতে কনডম ব্যবহার করুন। এই পদ্ধতির ভালভাবে কাজ করতে হলে কতদিন অতিবাহিত হয়েছে সেবিষয়ে আপনাকে খুব ভালভাবে হিসেব রাখা অব্যহত রাখতে হবে। আপনার চক্রের যদি পরিবর্তন হয়, তবে যত দিন পর্যন্ত না আপনার মাসিক আবার নিয়মিত না হয় সেই কয়েক মাসের জন্য আপনি অন্য আর একটি পদ্ধতি ব্যবহার করুন।

একজন নারীর দেহ তার গর্ভধারণক্ষমতার সময়ে শুক্রাণুগুলোকে গর্ভাশয়ের মধ্যে যেতে সাহায্য করতে তার যোনিতে ভেজা শ্লেষ্মা উৎপাদন করে। তাই প্রতিদিন এই শ্লেষ্মা পরীক্ষা করলেও সে কখন তার গর্ভধারণক্ষমতার সময়ে রয়েছে তা জানতে তাকে সাহায্য করতে পারে।

NWTND FP Page 18-2.png
NWTND FP Page 18-3.png
পরিষ্কার, ভিজা, পিচ্ছিল শ্লেষ্মা = গর্ভধারণক্ষম সাদা, শুষ্ক, আঁঠালো শ্লেষ্মা = গর্ভধারণক্ষম নয়

প্রত্যাহার, বের করে আনা

যখন একটি পুরুষ তার বীর্যপাতের আগে একজন নারী যোনি থেকে তার পুরুষাঙ্গ বের করে আনে তবে তারা হয়তো গর্ভধারণ রোধ করতে পারে, যদি পুরুষটি তার নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করায় খুবই পারদর্শী হয় এবং তা করার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়। এটি সেই সমস্ত পুরুষদের জন্য ভাল কাজ করে না যাদের অযাচিতভাবেই বীর্যপাত হয়। একটি পুরুষ বের করে আনলেও শুক্রাণুযুক্ত কিছু তরল পদার্থ তার পুরুষাঙ্গ থেকে বের হয়ে আসতে পারে এবং গর্ভধারণ ঘটাতে পারে। এই পদ্ধতি যারা নিশ্চিত যে তারা গর্ভধারণ চায় না তাদের জন্য সম্ভবত এটি একটি ভাল পদ্ধতি নয়। বের করে আনা এসটিআই-এর বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেয় না।

সঙ্গম ছাড়াই যৌনকাজ

NWTND FP Page 19-1.png

অনেকগুলো উপায় আছে যার মাধ্যমে কারো নিকটে আসা যায়, যৌন সুখ উপভোগ করা যায়, এবং যৌনসঙ্গম ছাড়াও ভালবাসা দেখানো যায়। অনেক দম্পতিই মুখমৈথুন চর্চা করে: সুখানুভূতি আনতে পুরুষাঙ্গ বা যৌনিতে আপনার মুখ ব্যবহার করা। এইভাবে আপনি গর্ভবতী হবেন না। পায়ু পথে যৌনক্রিয়াও গর্ভধারণ ঘটাতে পারে না। কিন্তু আপনি মুখমৈথুন ও পায়ুপথে যৌনক্রিয়ার মাধ্যমে এইচআইভিসহ এসটিআই সংক্রামণ রোধ করতে পারবেন না। আপনার হাত ব্যবহার করে সাধারণতঃ কাউকে যৌনসুখানুভূতি দেয়া খুবেই নিরাপদ। এটি গর্ভধারণ ঘটতে পারে না এবং এটি কোন এসটিআই ছড়াতে পারে না।



এই পাতাটি হালনাগাদ করা হয়েছে: ১২ মে ২০২১