Hesperian Health Guides

ক্যান্সারের অনেকটাই প্রতিরোধ করা যায়

বিভিন্ন অনেক জিনিসের কারণে ক্যান্সার হতে পারে, এবং সাধারণতঃ নীচের কয়েকটি ছাড়া জানার কোন উপায় নেই যে একটি নির্দিষ্ট জিনিসের কারণে একজন ব্যক্তির ক্যান্সার হয়েছে কিনা:


অন্যান্য বেশীরভাগ ক্যান্সারই মনে হয় নির্দিষ্ট কিছু ক্ষতিকারক জিনিসের যৌথ সংস্পর্শে আসার কারণে হয়ে থাকে।

আমরা সকল ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারবো না কিন্তু যে জিনিসগুলো ক্যান্সার হওয়াকে আরও সাধারণ ঘটনায় পরিণত করেছে সেগুলোকে সীমাবদ্ধ করে আমরা ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি হ্রাস করতে পারি।

একটি পুরুষ ও কোলে একটি ছোট শিশু নিয়ে একজন নারী ধূমপান করছে।

ধোঁয়া ও ধুমপান এড়িয়ে চলুন

  • করা। ধূমপান ফুসফুসের ক্যান্সার সৃষ্টি করে, এবং সেই সাথে মলাশয়, মূত্রাশয় ও ঘাড়ের ক্যান্সার সৃষ্টি করে। এর ফলে হৃদরোগ, স্ট্রোক, ফুসফুসের সংক্রামণ, এবং আলসার হতে পারে, এবং যখন গর্ভবতী নারী ধূমপান করে বা অন্যের সিগারেটের ধোঁয়া নিঃশ্বাসের মাধ্যমে গ্রহণ করে তাদের শিশুদের অসুস্থ্য হবার বা বিপজ্জনকভাবে ছোট হয়ে জন্মাবার সম্ভাবনা বেশী। ধুমপান বন্ধ করা ধূমপায়ীদের জন্য ক্যান্সার আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমায়, এবং যে বয়সেই আপনি ধূমপান বন্ধ করুন না কেন তা আপনার পরিবার ও বন্ধুদেরকেও রক্ষা করবে। কিভাবে ধূমপান বন্ধ করতে হবে তার উপর আরও জানতে মাদক, এ্যালকোহল, এবং তামাক (সংকলিত হচ্ছে) দেখুন।
  • ঘরের ভিতরে রান্নার আগুন ক্যান্সার ও ফুসফুসের রোগ হবার সম্ভাবনা বৃদ্ধি করে। ধোঁয়া-মুক্ত বা স্বল্প ধোঁয়ার রান্নার চুলা তৈরী করা এবং ধোঁয়াগুলো বাইরে বের করে দেয়া (পরিবেশ স্বাস্থ্য বিষয়ে জনগোষ্ঠীর জন্য একটি সহায়িকা) পুরো পরিবারের জন্য ক্যান্সারের সম্ভাবনা কমিয়ে দেয়।
  • কারখানা, গাড়ী, এবং ট্রাক থেকে সৃষ্ট দূষণ ক্যান্সার ঘটায়। মানুষ যদি দাবি করে এবং আইনে যদি তার প্রয়োজনীয় হয় তবে এগুলোকে আরও কম ধোঁয়া ও কম ক্যান্সার উৎপাদন করায় বাধ্য করা যায়।
  • একটি ধোঁয়াময় পরিবেশে কাজ করা বিপজ্জনক। আপনি ও আপনার সহকর্মীরা যদি আপনার কর্মকর্তাকে দিয়ে বায়ু চলাচল ব্যবস্থার উন্নতি করতে পারেন, বা নিদেনপক্ষ্যে আপনাদেরকে যেন ফিল্টারযুক্ত মুখোশ (শ্বাসমুখোশ) দেয়ার ব্যবস্থা করতে পারেন, তবে আপনারদের স্বাস্থ্যের উন্নতি হবে।
একজন লোক একটি বোতল থেকে এ্যালকোহল পান করছে।

কম পরিমাণে এ্যালকোহল পান করুন

প্রতিদিন এক বা দুই গ্লাসের বেশী এ্যালকোহল পান করলে বেশ কয়েকটি ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। স্তন ক্যান্সার, যকৃতের ক্যান্সার, পেট ও অন্ত্রের ক্যান্সার, মুখ ও গলার ক্যান্সার এর সবগুলোই হয়তো এ্যালকোহল পান করা সংশ্লিষ্ট। কম পান করা প্রতিদিনকার খাবার এবং পরিবারের অন্যান্য চাহিদা পূরণের জন্য আরও বেশী অর্থ যোগান দিতে পারে। কিভাবে মদ্যপান বন্ধ করতে হবে তার উপর আরও জানতে মাদক, এ্যালকোহল এবং তামাক (সংকলিত হচ্ছে) দেখুন।

সংক্রামণ এড়িয়ে চলুন ও এর চিকিৎসা করুন

  • এইচ পাইলোরি নামের যে ব্যক্টেরিয়া পেটে আলসারের কারণ ঘটায় সেটির চিকিৎসা করা না হলে তা পেটের ক্যান্সার ঘটাতে পারে। আপনার যদি পেটের আলসার বার বার হতে থাকে তবে এটিকে পেটে ব্যথা, ডাইরিয়া এবং কৃমি অধ্যায়ে বর্ণিত ঔষধ দ্বারা চিকিৎসা করা যায়
  • হেপাটাইটিস বি এবং সি যকৃতের ক্যান্সার ঘটাতে পারে। হেপাটাইটিস বি-এর জন্য টীকা আছে, এবং যৌন সঙ্গমের সময় কনডম ব্যবহার করে এবং ইঞ্জেকশনের সূঁই পুনর্ব্যবহার না করে হেপাটাইটিস বি এবং সি উভয়ই প্রতিরোধ করা যায়। হেপাটাইটিসের উপর আরও জানতে
  • এইচপিভি (হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস, একটি যৌনবাহিত সংক্রামণ, পৃষ্ঠা ১২ দেখুন) নারীদের মধ্যে জরায়ু মুখ ক্যান্সার এবং নারী ও পুরুষের মধ্যে অন্যান্য অনেক ক্যান্সারের কারণ। এইচপিভি থেকে রক্ষা পাবার জন্য একটি প্রতিশেধক আছে।
  • এইচপিভির কারণে বেশ কয়েটি ক্যান্সার প্রায়ই দেখা যায়, বিশেষভাবে ক্যাপোসীর সারকোমা, অ-হজকিনিয় লীম্ফোমা, এবং জরায়ু মুখ ক্যান্সার। যৌন সঙ্গমের সময় কনডম ব্যবহার করে এবং সূঁই পুনর্ব্যবহার না করে এইচআইভি প্রতিরোধ করুন।

ভাল খাবার ভাল স্বাস্থ্য তৈরী করে

খাবার অভ্যাস ক্যান্সার রোধে ভূমিকা রাখতে পারে বা ক্যান্সার রোধ করে। প্রতিদিন পূর্ণ শস্যদানা, এবং সতেজ সবজি ও ফল আপনাকে অনেক ক্যান্সার ও অন্যান্য অসুস্থ্যতা থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে। আপনার অল্প টাকা থাকলেও কিভাবে ভাল খেতে হবে দেখুন। শস্যদানা ও শিমের বীচি বায়ুচলাচল ব্যবস্থাযুক্ত ঘরে সংরক্ষণ করলে যকৃতের ক্যান্সার সৃষ্টি করে এমন একটি ছত্রাক দ্বারা এগুলো নষ্ট হওয়া রোধ করা যায়।

স্বাস্থ্য পরিচর্যায় প্রবেশগম্যতা

যখন মানুষের ভাল মানের স্বাস্থ্য সেবায় প্রবেশগম্যতা থাকে তখন তাদের স্বাস্থ্য ভাল থাকে এবং আরও বেশী করে ক্যান্সার প্রতিরোধ হয়। স্বাস্থ্য সেবায় প্রবেশগম্যতা প্রাথমিক পর্যায়েই ক্যান্সার সনাক্ত করতেও সাহায্য করে যা এর চিকিৎসাকে আরও সফল করে তোলে।

রাসায়নিক দ্রব্যের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলুন

শিল্প কারখানাগুলোতে ও কৃষিতে হাজার হাজার রাসায়নিক দ্রব্য তৈরী ও ব্যবহার করা হচ্ছে, এবং তা আমরা যে বায়ুতে নিঃশ্বাস নেই, যে জল পান করি, এবং যে খাবার খাই তাতে বিমুক্ত করা হচ্ছে। কোন কোন রাসায়নিক দ্রব্য আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক, এর মধ্যে কতগুলো আছে যেগুলো ক্যান্সারের কারণ বা ক্যান্সার হওয়ায় ভূমিক রাখে। দুর্ভাগ্যজনক যে ব্যবহার করার আগে রাসায়নিক দ্রব্য যে নিরাপদ তা প্রমাণে বাধ্য করার জন্য কোন আইন নেই, তাই আমরা রাসায়নিক দ্রব্যগুলোর বিপদ সম্পর্কে জানতে প্রায়ই দেরী করে ফেলি। সারা বিশ্বে রাসায়নিক দ্রব্যের বর্ধিত ব্যবহার ক্যান্সার হওয়ার হার বেড়ে যাওয়ার পিছনে একটি কারণ। রাসায়নিক দ্রব্য ও ক্যান্সার প্রতিরোধ করার গুরুত্বপূর্ণ উপায়গুলোর মধ্যে আছে:

  • একটি রাসায়নিক দ্রব্য নিরাপদ প্রমাণ করার আগে পর্যন্ত এটিকে বিপজ্জনক বলে ধরে নিতে হবে।
  • কীটনাশক ও রাসায়নিক পরিষ্কারক ব্যবহার করা, বা রাসায়নিক দ্রব্য সংরক্ষণ করা কোন পাত্র পুনর্ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন।
  • প্লাষ্টিক বা অন্যান্য বর্জ্য পোড়াবেন না (এর ফলে আমরা যে বায়ুতে নিঃশ্বাস নেই তাতে বিষাক্ত ধোঁয়া মিশে যায়)।
  • আপনি যদি আপনার কর্মকর্তাকে আপনার কর্মক্ষেত্রে নিরাপদ রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করার বিষয়ে উপলব্ধি করাতে না পারেন তবে সেগুলো নিঃশ্বাসের মাধ্যমে নিতে বা স্পর্শ না করার চেষ্টা করুন। দস্তানা, মুখোশ, এবং নিরাপত্তামূলক পোষাক ব্যবহার করুন, এবং প্রায়ই আপনার হাত ধুয়ে নিন যাতে করে রাসায়নিক দ্রব্য আপনার খাবারে বা মুখে না যায়।
  • বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র এবং কারখানাগুলো তাদের বর্জ্য নিরাপদভাবে সামলায় এবং দূষণ না ঘটায় তা নিশ্চিত করতে আপনার সরকারের কাছে দৃঢ় দাবী জানান। রাসায়নিক দ্রব্যের সংস্পর্শে আসার বিরুদ্ধে আপনার জনগোষ্ঠীকে সংগঠিত করার বিষয়ে আরও জানতে পরিবেশ শিল্প স্বাস্থ্য বিষয়ে জনগোষ্ঠীর জন্য একটি সহায়িকা দেখুন।
দূষণ কিভাবে একজন বুকের দুধ পান করানো নারীর দেহে প্রবেশ করছে তার একটি চিত্রণ। শিল্প কারখানার দূষণ গিয়ে আমাদের দেহে প্রবেশ করে। দূষণ বন্ধ করা ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা কমিয়ে দেবে।

আমরা যদি মুনাফার থেকে মানুষের জীবনের উপর বেশী মূল্য দেই তবে ক্যান্সার কমে যাবে।



এই পাতাটি হালনাগাদ করা হয়েছে: ১২ মে ২০২১