Hesperian Health Guides

ক্ষুধা নিবারণ করা

আপনার নিজের এলাকাতে আপনি খাবার উৎপাদন, ভালভাবে তা সংরক্ষণ, এবং তা প্রতিবেশীদের সাথে ভাগাভাগি করে খাবার বিষয়ক জরুরী অবস্থার মোকাবেলায় সাহায্য করতে পারেন।

খবার উৎপাদন

আপনি যেখানেই থাকুন না কেন সেখানেই আপনি খাবার উৎপাদন করতে পারবেন। নিজের খাবার নিজেই উৎপাদন করা স্বাস্থ্যকর উপায়ে খাবার খাওয়ার সবথেকে ভাল উপায়গুলোর অন্যতম, এবং তা খাবার কেনার জন্য যখন আপনার কোন অর্থ থাকবে না তখন খাবারের যোগান দেবে।

কয়েকটি বাসভবনের মধ্যেখানে একটি খোলা জায়গায় তৈরী একটি বাগানে কয়েকজন লোক সবজির তত্ত্বাবধান করছে

শহুরে বাসিন্দারা ছাদের উপর, খালি জায়গায়, বা জানালার উপর ছোট পাত্রে বা মাটির থলিতে খাদ্য উৎপাদন করে। একটি পাত্রে কয়েকটি মাত্র গাছ, আপনাকে যদিও তেমন বেশী খাবার যোগান দেবে না, কিন্তু এটি শুরু করার একটি উপায় হতে পারে। শিশুরা কোন কিছু উৎপাদন করায় সাহায্য করতে ভালবাসে, এবং উদ্ভিদের পরিচর্যা তাদেরকে শিখাবার জন্য একটি মূল্যবান দক্ষতা। কোন খালি জায়গাতে বাগান তৈরী করতে প্রতিবেশীদের সাথে যোগ দিন এবং তাহলে আপনি আরও বেশী উৎপাদন করতে পারবেন।

আপনি যদি ইতোমধ্যেই চাষ করে থাকেন, কিন্তু বেশীরভাগ সময়ই অর্থকরী ফসল যেমন তুলা, কফি, চাল, বা কোকা উৎপাদন করেন, তবে আপনার পরিবার বা গ্রামের জন্য সবজি উৎপাদন করুন। অথবা একটি ছোট মাছের পুকুর তৈরী করুন। আপনার অর্থকরী ফসল যদি ভাল ফলন না দেয় বা তার মূল্য কমে যায় তবুও আপনার খাওয়ার জন্য কিছু থাকবে।

আপনার নিজের খাদ্য নিজেই উৎপাদন করার আরও ধারণার জন্য হেসপেরিয়ান-এর পরিবেশ স্বাস্থ্য বিষয়ে জনগোষ্ঠীর জন্য একটি সহায়িকা, অধ্যায় ১৫ দেখুন।

আপনার ফলন উন্নত করুন

একটি গরু ঘাস খাচ্ছে এবং প্রাণীজ সার তৈরী করছে
  • প্রাণীজ সার এবং জৈব সার ব্যবহার করে মাটির মানোন্নয়ন করুন। বানিজ্যিক বা রাসায়নিক সার ফলন বৃদ্ধি করে মাত্র কয়েক বছরের জন্য, তারপর মাটিকে দুর্বল করে এবং জলের উৎসকে দূষিত করে রেখে দেয়। প্রাকৃতিক সার যেমন প্রাণীজ সার বা জৈব সার ধীরে ধীরে দীর্ঘ মেয়াদের জন্য মাটির গুণগত মানের উন্নয়ন করে। একটি ছোট সবজি বাগানের জন্য একটি পাত্রে আপনার সকল উচ্ছিষ্ট খাবার সংগ্রহ করুন যেখানে সেগুলো পঁচে মাটির সাথে মিশে যেতে পারে, এবং মাটির মান বৃদ্ধির জন্য সেই জৈব সার ব্যবহার করুন।
একজন নারী একটি ঝুলন্ত বালতিতে জল ঢালছে, যে বালতি থেকে দু’টো নল সরাসরি এক টুকরা সবজির জমির উপরে গিয়ে পড়েছে
নলের মধ্যে ছোট ছোট ফুটো ধীরে ধীরে টপ টপ করে মাটিতে জল পড়তে সাহায্য করছে।


  • যত্নের সাথে আপনার জল ব্যবহার করুন। বৃষ্টির জল সংগ্রহ করার চেষ্টা করুন। একটি বড় নিষ্কাশক খন্দ তৈরীর মাধ্যমে জলের অপচয় না করে আপনি যদি একটি লম্বা নল জোগাড় করতে পারেন তবে তাতে এক সারিতে ছোট ছোট অনেকগুলো ফুটো করে প্রতিটি গাছে আলাদা করে জল দিতে পারেন।
NWTND Nut Page 31-1.png
এই বছর ভূট্টা। আগামী বছর শিমের বীচি।


  • রোগ প্রতিরোধ করতে ও মাটির শক্তি বাড়াতে ফসল পরিবর্তন করুন।
  • মটরশুঁটি বা শিমের বীচি চাষ করুন। এগুলো পুষ্টিকর খাবার এবং এগুলো বৃদ্ধির সাথে সাথে মাটিকেও শক্তিশালী করে।
একজন লোক তার পিঠে বহন করা একটি ট্যাংকের সাথে সংযুক্ত একটি স্প্রে করার যন্ত্র ব্যবহার করে শস্যে স্প্রে করছে
আপনার যদি স্প্রে করার যন্ত্র থাকে তবে সেটিকে ভাল করে পরিষ্কার করুন, তারপর এর মধ্যে ভেষজ তেল ও জল ভরুন। তারপর জাবপোকা ও অন্যান্য পোকমাকড় মারতে ভাল করে ঝাকিয়ে স্প্রে করুন।

কীটনাশক এড়িয়ে চলুন। কীটনাশক বিষ। এগুলো অল্প সময়ের জন্য পোকামাকড় মেরে ফেলে এবং শস্যের উপকার করে, কিন্তু এগুলো যারা নিয়ে নাড়াচাড়া করে ও ব্যবহার করে তাদের ক্ষতি করে। পাখি বা ছোট প্রাণী যেগুলো ঐ পোকামাকড়গুলোকে খাবে তারাও হয়তো অসুস্থ্য হয়ে পরতে পারে। এইসব শিকারীদের ছাড়া অনেক অনেক পোকামাকড় শস্যের ক্ষতি করতে বেঁচে থাকবে। সময়ের আবর্তে পোকামাকড়গুলো আরও শক্তিশালী হবে এবং আরও শক্তিশালী বিষেও তারা বেঁচে থাকবে। এই ব্যয়বহুল রাসায়নিকগুলো বিপজ্জনক এবং যখনই সম্ভব এগুলোকে এড়াতে হবে।
শক্তিশালী বিষ ব্যবহার না করেও কোমল সাবান ব্যবহার করে গাছপালার উপর স্প্রে করলেও পোকামাকড় নিয়ন্ত্রেণে আনা যায়। এমনকি ভেষজ তেলও অনেক পোকমাকড় মেরে ফেলে।

আপনি যে খাবার উৎপাদন করেন তা সংরক্ষণ করুন

খাবার উৎপাদন করে লাভ নেই যদি তা নষ্ট হয়ে যায় বা পোকায় খেয়ে ফেলে। উৎপাদন মৌশুম শেষ হয়ে যাবার পর খাবার নিরাপদ রাখার কিছু ঐতিহ্যবাহী উপায় হলো শুকানো, আচার করা, নোনা করা, এবং গেঁজানো।

শস্যদানা ও শিমের বীচির জন্য

  • শস্যকর্তনের পরপরই তা শুকান ও সংরক্ষণ করুন। (শস্যদানা মাঠে ফেলে রাখলে প্রচুর পরিমাণে শস্যহানী হতে পারে।)
  • কোন শুকনো জায়গায়, মাটি থেকে উপরে, এবং দৃঢ়ভাবে আঁটকানো যায় এমন কোন পাত্রে শস্যদানা সংরক্ষণ করুন। অনেক বেশী পরিমাণ ফসল তুললে আপনি এরকম একটি উত্থিত চালার তৈরী করতে পারেন। অল্প পরিমাণ হলে তা ব্যারেল বা অন্যান্য বন্ধ পাত্রে সংরক্ষণ করতে পারেন।
প্রতি পায়ে কলার লাগানো একটি উত্থিত কাঠের চালা
কলার
আগাছার এলাকা এবং অন্যান্য ঢাকা জায়গা পরিষ্কার করুন। ইঁদুর খাবারের উচ্ছিষ্ট ও রক্ষিত অন্ধকার এলাকার প্রতি আকৃষ্ট হয় যেখানে বাসা বানাতে পারে। এগুলো এই জায়গা থেকে সরিয়ে ফেলুন।


পাত্রগুলোকে ভালভাবে আঁটকে রাখুন এবং কোন ফুটো হলে দ্রুত এগুলোকে মেরামত করুন। ইঁদুর খুব ছোট ফুঁটোর মধ্যে দিয়ে গলিয়ে যেতে পারে।
শস্যদানা সংরক্ষণের পাত্রটি মাটি থেকে উঁচুতে রাখুন।



ইঁদুর বেঁয়ে বেঁয়ে উঠতে পারে। সংরক্ষণের পাত্রটিকে কোন কিছু স্পর্শ করে থাকলে তা সরিয়ে ফেলুন এবং এর পায়ার চারপাশে কলার লাগিয়ে দিন।

ইঁদুর তাড়াবার জন্য কুকুর বা বিড়াল পুষুন।
  • ভারতের বিভিন্ন অংশে, চাষীরা সংরক্ষিত শস্যদানার সাথে নীম পাতা মিশায়। নীম প্রাকৃতিক এবং নিরাপদ কীটনাশক এবং এগুলো পোকামাকড় দূরে রাখে। ক্যামেরুনে চাষীরা শুকানো বিউলির ডালের সাথে কাঠের ছাই একত্র করে খুব দৃঢ় ভাবে মাটির পাত্রে রেখে সংরক্ষণ করে। ছাই গুবরে পোকা দূরে রাখে। অন্যান্য এলাকায় শুকনো শিমের বীচি তেলের মধ্যে রেখে সংরক্ষণ করা হয়। এগুলো সবই শস্যদানা এবং শিমের বীচি সংরক্ষণ করার এবং পরবর্তীতে ব্যবহারের জন্য আপনার খাবার রক্ষা করার জন্য চমৎকার, নিরাপদ উপায়।
  • ভাকুন্দা পড়ে যাওয়া শস্যদানা বিনষ্ট করতে হবে। ভাকুন্দায় বিষ থাকে।
একটি গাছের সাথে দড়িতে শুকানোর জন্য আগুনের উপর মাছ ঝুলছে

শুকানো

আপনি যখন খাবার ফলাতে বা উৎপাদন করতে না পারবেন তখন শুটকী মাছ, ফল, মাংস, এবং সবজি ভিটামিন, আকরিক, এবং প্রোটিনের যোগান দিতে পারে। মাটি থেকে উপরে রেখে আরও দ্রুত ও কম ধূলা লাগিয়ে শুকাতে পারেন। একটি অগভীর ঢিলা-বুনানের ঝুড়ি, মুরগির বেড়া তৈরীর তার, বা কোন ধরনের কাঠামো দ্বারা বাঁধানো পর্দা নীচ দিয়ে বাতাস বয়ে যেতে সুযোগ দিয়ে খাবারকে আরও দ্রুত শুকিয়ে দেয়। শুকাতে দেয়া খাবারে পোকামাকড় পড়া ও ধূলা লাগা এড়াতে একটি পাতলা কাপড় বা অন্য একটি পর্দা দিয়ে ঢেকে দিন।

শুকানোর জন্য সবজি সাধারণতঃ খুব সামান্য রান্না করতে হবে। সবজি এবং ফল যতক্ষণ না প্রায় বেশীরভাগই শুকিয়ে যায় কিন্তু তবু্ও সুস্বাদু হবার জন্য যথেষ্ট আদ্রতা থাকে ততক্ষণ শুকান। মাংস এবং মাছ আগুনের উপরে ধরে শুকানো যায়।

শুকানো খাবার কোন অন্ধকার এবং ঠাণ্ডা জায়গায় বন্ধ থলি বা পাত্রে রাখুন।

আপনার প্রতিবেশীর সাথে তা ভাগাভাগি করুন।

একটি পরিবার একটি খাদ্য ব্যাংক থেকে খাবার গ্রহণ করছে, আর অন্যান্যরা টেবিলে খাবার খাচ্ছে

কোন কোন জনগোষ্ঠীতে যাদের প্রয়োজন তাদের সাথে খাবার ভাগাভাগি করার একটি প্রথা রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, যখন কোন পরিবার ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানে যোগ দেয়, তখন তারা একমুষ্ঠি শস্যদানা ভাগাভাগি করার জন্য নিয়ে আসে। অনেক পরিবারের কাছ থেকে অল্প অল্প পরিমাণে শস্যদানা যোগ হয়ে অনেক বেশী পরিমাণ শস্যদানা সংরক্ষিত হয়। তারপর যদি কয়েকটি পরিবারের শস্য উৎপাদন না হয় তবে সংরক্ষিত ঐ শস্যদানা সংগ্রামরত পরিবারগুলোর জন্য দেয়া হয়। কোন কোন দল স্বাভাবিক ‘চাল ব্যাংক’ তৈরী করেছে যেখানে পরিবারগুলো শস্য কর্তনের সময় ধান রেখে যায় যাতে শুকনোর সময় অভাবগ্রস্ত পরিবারগুলোকে কর্জ হিসেবে দেওয়া যায়।

জনগোষ্ঠী পর্যায়ে ক্ষুধার স্থানীয় সমাধান

Tব্রাজিলের বেলো ওরিযোন্তে এর নাগরিক ও খাদ্য উৎপাদনকারীদের ক্ষুধা ও দারিদ্র দূর করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। ১৯৯০-এর দশকে, স্থানীয় সরকার খাদ্যকে একটি মানবিক অধিকার হিসেবে ঘোষণা দেয়, এবং এই অধিকারকে সমর্থন দিতে তারা একটি নতুন কার্যক্রম শুরু করে। উদাহরণস্বরূপ:

  • বিদ্যালয়ের শিশুদের স্বাস্থ্যকর খাবার প্রদান করা হয়।
  • প্রতি সপ্তাহে দরিদ্র জনগোষ্ঠি এক ঝুড়ি মৌলিক, পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করতে পারবে।
  • এলাকার তিনটি বড় বড় রেস্তরাঁ কম দামে সাধারণ, পুষ্টিকর খাবার পরিবেশন করে। নিয়মিত খদ্দেররা এই রেস্তরাগুলোতে উন্নতির জন্য পরামর্শ দিতে পারে।
NWTND Nut Page 33-1.png
  • শহর কর্তৃপক্ষ তাদের খাবার কার্যক্রমের জন্য শহরের কাছাকাছি বাস করা ছোট কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ফল ও সবজি কেনে। এছাড়াও এটি কৃষকদের জন্য একটি বাজার সৃষ্টি করেছে যেখানে কৃষকরা তাদের পন্য একটি ন্যায্য মূল্যে বিক্রি করতে পারে। এর ফলে ছোট কৃষকরা তাদের জায়গাতেই থাকতে পারে, তাই তাদের শহরে যেতে হয় না। এর ফলে শহরে বসবাসকার ব্যক্তিদের জন্য যথাযথ পরিমাণ সতেজ ফল ও সবজির সরবরাহ নিশ্চিত করে।
  • ডজন ডজন বাজারে মৌলিক খাবারের দাম অনুসরণ করা হয়। তারপর এই দামগুলো জনসমাগমের জায়গায় এবং দূরদর্শণ ও বেতারে প্রচার করা হয় যাতে মানুষ জানতে পারে যে কোথায় গেলে ভাল দাম পাওয়া যাবে, এবং তাই ব্যক্তিগত বাজারগুলো তাদের মূল ন্যায্য রাখতে বাধ্য হয়।

এই কার্যক্রম খুব দ্রুতই এবং ব্যাপকভাবে বেলো ওরিযোন্তের মানুষের স্বাস্থ্যের উন্নতি করেছে। এই কার্যক্রম শুরু হবার পর থেকে শিশু মৃত্যুর হার অর্ধেকে নেমে এসেছে।



এই পাতাটি হালনাগাদ করা হয়েছে: ৩১ জুলাই ২০২১