Hesperian Health Guides

হৃদরোগ এবং উচ্চ রক্তচাপ

হেসপেরিয়ান স্বাস্থ্যউইকি > নতুন যেখানে ডাক্তার নেই > অধ্যায়:হৃদরোগ এবং উচ্চ রক্তচাপ

হৃদরোগ কী?
NWTND heart Page 1-1.png
আমাদের সারা দেহের মধ্যে রক্ত সঞ্চালন করতে হৃৎপিণ্ড দিন রাত্রি কাজ করে। আপনার গলার পাশে বা কব্জির উপর আঙ্গুল রেখে আপনার দৃঢ় হৃদ স্পন্দন শুনুন।

হৃৎপিণ্ড থেকে দেহের সকল অংশে রক্ত বয়ে নিয়ে যাওয়া (ধমনী) ও আবার ফেরত যাওয়ার (শিরা) জন্য যে নাড়ী সেই ধমনী ও শিরার মধ্যে দিয়ে রক্ত সঞ্চালন করার জন্য আমাদের দেহের একটি শক্তিশালী ও স্বাস্থ্যবান হৃৎপিণ্ডের প্রয়োজন। ধমনীগুলো যদি আটকে যায় বা ভঙ্গুর হয়ে যায়, যথেষ্ট পরিমাণে রক্ত হৃৎপিণ্ডে ফেরত না যায় তবে হৃৎপিণ্ড দুর্বল হয়ে যায়। এবং হৃৎপিণ্ড যদি খুবই দুর্বল হয়ে যায়, তবে এটি রক্ত ভালভাবে সঞ্চালন করবে না এবং এটিকে অতিরিক্ত পরিশ্রম করতে হবে।

যেহেতু রক্তের মাধ্যমে সারা দেহে অক্সিজেন এবং পুষ্টি উপাদান বাহিত হয়, রক্ত চলাচল ও হৃৎপিণ্ডের সমস্যা সারা দেহকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। এটি জল সঞ্চালন ব্যবস্থার মতো: যদি পাম্পটি অতি ব্যবহৃত হয় তবে তা অকেজো হয়ে যেতে পারে; যদি এটি দুর্বল হয় তবে সব ঘরে জল পৌঁছাবে না; নলগুলো যদি কিছু জমে বন্ধ হবার যোগার হয় তবে কম পরিমাণে জল বের হবে; এবং যে ঘরগুলো জল পাবে না সেখানে অসুস্থ্যতার পরিমাণ বেড়ে যেতে পারে।

NWTND heart Page 1-2.png

ধমনী ও শিরার সমস্যা ও হৃৎপিণ্ডের ভিতরে থাকা ভালভ্‌গুলোর সমস্যাকে হৃদরোগ বলা হয়। সাধারণ হৃদরোগের (কার্ডিওভাসকুলার রোগও বলা হয়) মধ্যে আছে:

  • ধমনী শক্ত হয়ে যাওয়া (আর্টারিলোস্ক্লেরোসিস): হৃৎপিণ্ড থেকে সারা দেহে রক্ত বহন করার ধমনীগুলো যখন শক্ত, সরু, বা আটকে যায়—বেশীরভাগ সময়েই অতিরিক্ত অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার কারণে—তখন যথেষ্ট পরিমাণে রক্ত হৃৎপিণ্ডে ফেরত যেতে পারে না।
  • কনজেষ্টিভ হার্ট ফেইলিয়ার: যখন হৃৎপিণ্ড ভালভাবে রক্ত সঞ্চালন করার জন্য যথেষ্ট শক্তিশালী না হয়, তখন তাকে হার্ট ফেইলিয়ার বলা হয়। এর ফলে ব্যক্তির ক্ষতি হয় কারণ রক্তের যেখানে যাওয়া প্রয়োজন সে সব জায়গায় যেতে পারে না। দেহের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে স্বল্প পরিমাণে রক্ত বাহিত হবার ফলে ব্যক্তিটি খুব সহজেই ক্লান্ত হয়ে যায়। ভাল রক্ত চলাচলের অভাবে পা ফুলে যেতে পারে এবং ফুসফুসে জল জমতে পারে।
  • হার্ট এ্যাটাক: যখন হৃৎপিণ্ডের মধ্যে রক্ত প্রবাহ আঁটকে যায়, তখন হৃৎপিণ্ডের পেশীগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং সঠিকভাবে কাজ করার ক্ষেত্রে খুবই দুর্বল হয়ে পরে। এটি একটি জরুরী অবস্থা
  • স্ট্রোক: যখন মস্তিষ্কের মধ্যে রক্ত প্রবাহ আঁটকে যায় বা যখন রক্ত নালী নামে ডাকা একটি ছোট নাড়ী মস্তিষ্কের মধ্যে ফেটে যায় তখন মস্তিষ্কের ক্ষতি হয়। এটি একটি জরুরী অবস্থা
  • বাতজনিত হৃদরোগ: যখন বাতজনিত জ্বর একটি শিশুর হৃৎপিণ্ডের ক্ষতি করে তখন এটি হয়ে থাকে। ঔষধ বা অস্ত্রোপচার এক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে।
  • সদ্যজাতের হৃৎপিণ্ডের সমস্যা: একটি শিশু যখন তার হৃৎপিণ্ডে একটি ফুঁটো বা অন্য কোন ত্রুটি নিয়ে জন্ম গ্রহণ করে তখন তা এমন সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে যা একমাত্র অস্ত্রোপচারের মাধ্যমেই সারানো যায়। এগুলোকে হৃৎপিণ্ডের ত্রুটি বলা হয়।।

কার হৃদরোগ হবার সম্ভাবনা বেশী?

বেশীরভাগ হৃদরোগই কোন লক্ষণ দেখানোর অনেক আগে থেকেই অনেক সময় ধরে ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেতে থাকে। কিন্তু যেহেতু কোন কোন অবস্থা থেকে প্রায়শই হৃদরোগের সৃষ্টি হয় তাই একজন ব্যক্তির মধ্যে এই অবস্থাগুলোর ২টি বা তার বেশী দেখা দিলে ব্যক্তিটির মধ্যে যে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে হৃদরোগ দেখা দেবে তার পূর্বাভাষ করা সহজ:

  • প্রতিবার মাপার সময়ে রক্তচাপ ১৪০/৯০ এর বেশী থাকলে
  • অতিরিক্ত ওজন হলে
NWTND heart Page 3-1.png
তার প্রায়ই শ্বাস বন্ধ হয়ে আসতো কিন্তু আমরা কখনো ভাবিনি যে তার হৃৎপিণ্ডের কারণে তা হচ্ছে।
হার্ট এ্যাটাক বা স্ট্রোক হলে এটি হঠাৎ হয়েছে বলে মনে হতে পারে, কিন্তু হৃদরোগ প্রায়শই আপনার তরুণ বয়সে শুরু হয় এবং যতই সময় যায় এর অবস্থা অধিকতর খারাপ হতে থাকে।
  • ডায়াবেটিস থাকলে
  • ধূমপান করলে
  • ৫৫এর বেশী বয়সী পুরুষ হলে বা ৬৫এর বেশী বয়সী নারী হলে


এই অবস্থাযুক্ত ব্যক্তিদেরকে তাদের রক্তচাপ মাপতে এবং ডায়াবেটিস এবং কোলেষ্টেরল-এর মাত্রা পরীক্ষা করায় স্বাস্থ্যকর্মীরা উৎসাহ দিতে পারে।

আপনি হৃৎপিণ্ডের সমস্যাগুলোকে কমিয়ে ফেলতে পারেন, এবং যে সমস্যাগুলো ইতোমধ্যে আপনার আছে সেগুলোর উন্নতি করতে পারেন। ধূমপান বন্ধ করুন, ডায়াবেটিসের চিকিৎসা করান, কম পরিমাণে লবণ এবং কম পরিমাণে প্রক্রিয়াজাত 'জঞ্জাল' খাবার খান, আরও বেশী শরীর চর্চা করুন, এবং আপনার মানসিক চাপ কমান। এই পরিবর্তনগুলো আপনার হৃৎপিণ্ডকে সাহায্য করবে। আপনার স্বাস্থ্যকর্মীর সাথে কথা বলুন এবং রক্ত চাপ কমানো ও আপনার হৃৎপিণ্ডকে সাহায্য করার উপায় অধ্যায়ে।

কিভাবে হৃৎপিণ্ড ও সঞ্চালন ব্যবস্থার পরীক্ষা করা যায়

একজন স্বাস্থ্য কর্মী নীচেরগুলোর মাধ্যমে আপনার হৃৎপিণ্ড কত ভালভাবে কাজ করছে তা পরীক্ষা করতে পারে:

  • রক্ত চাপ পরীক্ষা করার। মাধ্যমে আপনার হৃৎপিণ্ড সারা দেহে রক্ত বহন করতে অতিরিক্ত কাজ করছে কিনা তা দেখা যায়। আপনার হৃৎপিণ্ডের সমস্যা হয়েছে বা হতে পারে বা অন্যান্য সমস্যা যা থেকে হার্ট এ্যাটাক বা ষ্ট্রোক হতে পারে তার একটি সতর্কবার্তা হলো রক্ত চাপের পরিমাপ সবসময়েই খুব উঁচু থাকা।
  • কোলেষ্টেরলের মাত্রা পরিমাপ করা। কোলেষ্টেরল দেহের মধ্যে তৈরী হওয়া একটি মোম জাতীয় তরল এর কিছুটা থাকা দেহের প্রয়োজন আছে, কিন্তু এর অতিরিক্ত থাকা মানে হৃৎপিণ্ডের সমস্যা দেখা দেবে তা বুঝায়।


অন্যান্য চিহ্ন বিশেষ করে যেগুলো আপনি প্রায়ই অনুভব করেন সেগুলো একটি হৃদরোগের লক্ষণ বুঝাতে পারে:

  • খু্বই দ্রুত, বা খুব ধীর বা সবসময়েই পরিবর্তনশীল হৃদস্পন্দন (এ্যারিথমিয়া)
  • বুকে ব্যথা (এ্যান্জিনা)
  • শ্বাসকষ্ট হওয়া বা ঘন শ্বাস হওয়া
  • আপনার পায়ের পাতা ও পা ফুলে যাওয়া
  • রাতে ঘুমানোর সময় সোজা হয়ে শোয়ায় অসুবিধা

হৃদরোগ রোধ করা

আমাদের খাওয়া খাবার এবং যেভাবে আমরা জীবন যাপন করি তার কারণেই বেশীরভাগ হৃদরোগ হয়। আমরা এর কয়েকটিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারি, কিন্তু অনেকগুলোই আমাদের নিয়ন্ত্রণের মধ্যে নেই। ভাল বাসস্থান বা স্বাস্থ্যকর খাবার কি সহজলভ্য ও সামর্থের মধ্যে? কাজের বিনিময়ে ভাল বেতন পাওয়া যায় কিনা? শরীর চর্চা করা ও শিশুদের খেলার জন্য কোন নিরাপদ জায়গা আছে কিনা? চারিদিকে দূষণ বা তামাকার ধোঁয়া আছে কিনা? বর্ণবাদ, দারিদ্র, নারীদের জন্য কঠোর জীবন বা সন্ত্রাস আমাদের জীবনকে প্রতিনিয়ত মানসিক চাপের মুখে ফেলে কিনা? এই অধ্যায়ে হৃদরোগ কিভাবে কাজ করে তার ব্যাখ্যা করা হয়েছে, কিন্তু এতে কিভাবে একজন ব্যক্তি, পরিবার, এবং এলাকার জনগণ ভালভাবে ও দীর্ঘ সময় বেঁচে থাকতে হৃদরোগ রোধ করতে পারে, তাও আলোচনা করা হয়েছে।

NWTND heart Page 4-1.png শিশুরা যদি প্রতিদিন নিরাপদে খেলতে পারে এবং খাওয়ার জন্য তারা পুষ্টিকর খাবার পায় তবে তাদের বয়স বাড়লে কম সংখ্যক স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দেবে।



এই পাতাটি হালনাগাদ করা হয়েছে: ২০ নভে ২০১৯