Hesperian Health Guides

ওয়েষ্ট নাইল ভাইরাস

NWTND mosq Page 16-1.png
এই মশাটি জলাভূমি বা অন্যান্য জমে থাকা বা ময়লা জলে বংশবৃদ্ধি করে।

ওয়েষ্ট নাইল ভাইরাস কিউলেক্স মশা দ্বারা ছড়ায়। এই মশাগুলো মাঝারি আকৃতির, বাদামী, এবং পেটের কাছে এর সাদা সাদা দাগ আছে। দিনের বেলায় এগুলো ঘর বা গাছপালার আশে পাশে অন্যান্য কাঠামোর মধ্যে বা চারপাশে বিশ্রাম নেয়। কাক, অন্যান্য পাখী, এবং ঘোড়া ওয়েষ্ট নাইল ভাইরাস বহন করে। মশা একটি আক্রান্ত প্রাণীকে কামড় দেয়ার পর যখন আর একজন ব্যক্তিকে কামড় দেয় তখন ভাইরাসটি ও অসুস্থ্যতাটি সে ব্যক্তির মধ্যে বাহিত হয়।

ওয়েষ্ট নাইল ভাইরাসের লক্ষণ

ওয়েষ্ট নাইল ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত বেশীরভাগ মানুষের মধ্যে এই অসুস্থ্যতাটির লক্ষণগুলো দেখা যায় না এবং তারা হয়তো নাও জানতে পারে যে তাদের এটি আছে। কিন্ত প্রতি ৫ জনে এক জন আক্রান্ত মানুষ অসুস্থ্য অনুভব করবে এবং নীচের লক্ষণগুলোর মধ্যে কোন কোনটি তাদের মধ্যে দেখা যাবে:

NWTND mosq Page 16-2.png
  • জ্বর
  • মাথাব্যথা
  • সব সময়েই ক্লান্ত অনুভব করা (অবসাদ)
  • শরীর ব্যথা
  • বমি
  • দেহের ফুসকুড়ি
  • ফুলে যাওয়া লসিকা গ্রন্থি


চিকিৎসা আপনাকে ভাল অনুভব করতে সাহায্য করতে পারে।

সাধারণতঃ এটি হয় না তবে ওয়েষ্ট নাইল ভাইরাস গুরুতর হয়ে উঠতে পারে। এই ধরনের রোগ মস্তিষ্কের ক্ষতি করতে পারে। তরুণদের তুলনায় লনা বয়স্ক ব্যক্তিদের গুরুতর ওয়েষ্ট নাইল ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশী। যে কোন বিপদ চিহ্ন দেখা গেলে দ্রুত চিকিৎসা সহায়তা নিন।

গুরুতর ওয়েষ্ট নাইল ভাইরাসের লক্ষণ
  • ঘাড়ে অনমনীয়তা
  • কম্পন (কাঁপুনি)
  • পক্ষাঘাত (নড়াতে অক্ষমতা)
  • জ্ঞান হারায়
প্রতিরোধ

ওয়েষ্ট নাইল ভাইরাস আছে এমন অঞ্চলে মৃত পাখি এবং অসুস্থ্য ঘোড়া দেখা গেলে এই অসুস্থ্যতাটি মানুষের মধ্যে শুরু হতে পারে তার একটি সতর্কবার্তা এটি। ঘোড়ার জন্য একটি টীকা আছে যা ওয়েষ্ট নাইল ভাইরাস প্রতিরোধ করে; তাই ঘোড়াকে টীকা দেয়ার মাধ্যমে মানুষকে রক্ষা করা যায়। এছাড়াও, মশার কামড় এড়িয়ে চলুন এবং মশার বংশবিস্তার রোধ করুন



এই পাতাটি হালনাগাদ করা হয়েছে: ১৩ মে ২০২১